সম্পাদকীয়

প্রকাশিত: ২:৪১ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৯, ২০২০

দুর্নীতি ও অপরাধ দমন করার জন্য আইন এবং আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর প্রতিরোধের পাশাপাশি সামাজিক সচেতনতাও সৃষ্টি করতে হবে
দুর্নীতি ও অনিয়মের বিরুদ্ধে ‘জিরো টলারেন্স’ নীতিতে সরকার। এ বিষয়ে কঠোর অবস্থানে রয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তাঁর নির্দেশনায় দেশজুড়ে চলছে দুর্নীতিবিরোধী সর্বাত্মক অভিযান। যত প্রভাবশালী এবং সরকার কিংবা ক্ষমতাসীন দলের যত ঘনিষ্ঠই হোন না কেন, ছাড় পাচ্ছেন না কোনো অপরাধীই। কারও ব্যক্তিগত অপরাধের দায় নিতেও নারাজ সরকার ও দল। সরকারের এই দুর্নীতিবিরোধী অভিযান সুশীল সমাজসহ সর্বমহলে প্রশংসিত হচ্ছে। সংবাদে প্রকাশ: শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা যেমন জঙ্গি, সন্ত্রাস ও মাদকের বিরুদ্ধে ‘জিরো টলারেন্স’ ঘোষণা করেছি, ঠিক তেমনি দুর্নীতির বিরুদ্ধেও ‘জিরো টলারেন্স’ ঘোষণা করলাম।’প্রতিটি বিভাগে সুশাসন নিশ্চিত করতে হবে। দুর্নীতিমুক্ত সেবা প্রদান নিশ্চিত করতে হবে। কোনো পর্যায়েই যাতে দুর্নীতি না হয় তা ভালোভাবে দেখতে হবে।’ প্রধানমন্ত্রী উন্নত সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ে তোলায় সুশাসন প্রতিষ্ঠা এবং দুর্নীতিমুক্ত প্রশাসন গড়ে তোলার ওপর গুরুত্বারোপ করে দুর্নীতির বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য প্রশাসনের কর্মকর্তাদের প্রতি নির্দেশনা প্রদান করেন। তিনি বলেন, একটি ক্ষুধা এবং দারিদ্র্যমুক্ত উন্নত ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ে তোলায় সুশাসন এবং দুর্নীতিমুক্ত প্রশাসন প্রতিষ্ঠা করা জরুরি। বিশ্নেষকরা বলছেন, প্রধানমন্ত্রীর সাম্প্রতিক বক্তৃতা-বিবৃতিগুলোতেও অনিয়ম-দুর্নীতির বিরুদ্ধে ‘জিরো টলারেন্স’ নীতির প্রতিফলন রয়েছে। সর্বশেষ গত ৯ জুলাই জাতীয় সংসদের বাজেট অধিবেশনের সমাপনী বক্তৃতায় প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘দুর্নীতিবাজ যে-ই হোক ব্যবস্থা গ্রহণ অব্যাহত থাকবে। কে কোন দলের তা বড় কথা নয়, দুর্নীতি ও অনিয়মে জড়িতদের আমরা ধরে যাচ্ছি। ধরে যাব।’ এর আগের দিন সংসদে আরেক বক্তৃতায় করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট নিয়ে প্রতারণায় যুক্ত রিজেন্ট হাসপাতাল এর বিরুদ্ধে অভিযান প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ওই হাসপাতালের এই তথ্য আগে কেউ দেয়নি, জানাতে পারেনি। সরকারের পক্ষ থেকেই খুঁজে বের করেছি, ব্যবস্থা নিয়েছি।’ গ্রেফতার করা হয়েছে কোভিড-১৯ নিয়ে প্রতারণা ও দুর্নীতিতে জড়িত ব্যক্তিবর্গকে। বিশেষত করোনা পরীক্ষায় ভুয়া রিপোর্ট দিয়ে প্রতারণাসহ বিভিন্ন দুর্নীতির খলনায়ক রিজেন্ট হাসপাতালের মালিক মোহাম্মদ সাহেদ ওরফে সাহেদ করিম এবং একইভাবে করোনাভাইরাস পরীক্ষার টেস্ট না করেই রিপোর্ট ডেলিভারি দেয়া জেকেজি হেলথ কেয়ারের প্রধান নির্বাহী আরিফ চৌধুরী ও অন্যতম সহযোগী তার স্ত্রী জেকেজি হেলথকেয়ারের চেয়ারম্যান ডা. সাবরিনাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। সরকারের শীর্ষ পর্যায়ের একাধিক সূত্র বলছে, করোনা সংকট শুরুর পর থেকে বিশেষ করে স্বাস্থ্য খাতে একের পর এক অনিয়ম-দুর্নীতির ঘটনায় ক্ষুব্ধ হন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাস মোকাবিলার পাশাপাশি কঠোরহস্তে অনিয়ম-দুর্নীতি দমনে জোর দেন তিনি। তার নির্দেশে দুর্নীতির বিরুদ্ধে আগে থেকেই চলে আসা অভিযান নতুন মাত্রা পায়। এরই মধ্যে মানব পাচারে অভিযুক্ত স্বতন্ত্র এমপি শহীদ ইসলাম পাপুলের কুয়েতে গ্রেপ্তার হওয়াসহ দেশের কয়েকটি স্থানে ত্রাণ বিতরণ নিয়ে দলের কয়েকজন নেতা ও জনপ্রতিনিধির বিরুদ্ধে অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ উঠলে তাদের বিরুদ্ধেও কঠোর অবস্থান নেওয়া হয়।করোনা মহামারি মোকাবিলায় স্বাস্থ্যখাতের দুর্নীতি সম্পর্কে যেমন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সোচ্চার হয়েছেন, তেমনি দুস্থ মানুষের ত্রাণ বিতরণে অনিয়মের বিরুদ্ধে কথা বলেছেন। গত বছর ২০১৯ ইং সেপ্টেম্বর জুড়ে দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযান সাধারণ জনগণকে সুশাসন প্রতিষ্ঠায় আশান্বিত করে তুলেছিল। ক্যাসিনো কিংবা জুয়ার বিরুদ্ধে সরকারের কঠোর অবস্থান এবং শুদ্ধি অভিযান তখন সকলের কাছে প্রশংসনীয় কাজ হিসেবে গণ্য হয়েছআইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরাও অপরাধ করে ছাড় পাচ্ছে না। টানা তৃতীয়বার ক্ষমতায় এসে আওয়ামী লীগ সরকার জনগণের কল্যাণ এবং দুর্নীতিমুক্ত দেশ গড়তে দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি নিয়েছে।
এ জন্য দুর্নীতি দমন কমিশনকে (দুদক) শক্তিশালী করা, জনসচেতনতামূলক কার্যক্রম জোরদার এবং আধুনিক তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে দুর্নীতির পরিধি ক্রমান্বয়ে শূন্যের কোঠায় নামিয়ে আনার পরিকল্পনা গ্রহণ করতে হবে। দেশের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত এবং এর অর্জনসমূহ সমুন্নত রাখতে সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদের মতো দুর্নীতির বিরুদ্ধেও জিরো টলারেন্স নীতি অব্যাহত রাখা একান্ত আবশ্যক। এমতাবস্থায়, কেবল আইন এবং আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে দিয়ে দুর্নীতি ও অপরাধ দমন করা সম্ভব নয়; এ জন্য সামাজিক সচেতনতাও সৃষ্টি করতে হবে।

এই সংবাদটি 36 বার পঠিত হয়েছে