কোনো দেশে আমাদের মতো পরিকল্পনা নেই: পরিকল্পনামন্ত্রী

প্রকাশিত: ৩:২৩ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১০, ২০২০

সু.ডাক ডেস্ক: পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেছেন, ‘আমরা ধারণা পাওয়ার জন্য প্রেক্ষিত পরিকল্পনা করে থাকি। আমাদের ৫, ১০, ২০ ও শতবর্ষ মেয়াদি পরিকল্পনা আছে। বিশ্বের অন্য কোনো দেশে এমন পরিকল্পনা নেই।’ বৃহস্পতিবার  রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে আনুষ্ঠানিকভাবে করা রূপরেখা সরকারের বিভিন্ন কর্তকর্তা ও গণমাধ্যমকর্মীদের অবহিত করার সময় তিনি এসব কথা বলেন। পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ‘করোনাভাইরাস আমাদের একটু ভোগাচ্ছে। আমরা অনেক ক্ষেত্রে ভালো আছি, সঠিক পথেই আছি। অনেক সূচকে ভালো আছি। তবে আদর্শিক সূচকে ভালো নেই।’ তিনি আরো বলেন, ‘স্বল্পোন্নত থেকে মধ্যম আয়ের দেশ হওয়ার পথে এগিয়ে চলেছে বাংলাদেশ। সরকারের লক্ষ্য ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত বাংলাদেশ গড়ে তোলা। দেশে দারিদ্র্যের হার নেমে আসবে ৩ শতাংশে। চরম দারিদ্র্যের হার হবে ১ শতাংশেরও কম। গ্রাম-শহরের বৈষম্য কমবে। ৮০ শতাংশ মানুষ শহুরে জীবনযাপনের সব সুবিধা পাবে। বাড়বে গড় আয়ু, মোট দেশজ উৎপাদন (জিডিপি)।’ ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত বাংলাদেশ গড়ে তোলার কর্মপরিকল্পনা নির্ধারণের রূপরেখা চূড়ান্ত করেছে সরকার, এ কথা উল্লেখ করে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ‘সেই রূপরেখা অনুযায়ী অষ্টম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনার মধ্য দিয়ে শুরু হবে এর বাস্তবায়ন। এমন আরও তিনটি অর্থাৎ মোট চারটি পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনার মধ্য দিয়ে তা চূড়ান্ত রূপ পাবে। প্রেক্ষিত পরিকল্পনায় আছে ১২টি অধ্যায়। এর মধ্যে যেমন শিল্প ও বাণিজ্য, কৃষি, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির মতো বিষয় রয়েছে, তেমনই আছে সুশাসন, মানব উন্নয়ন, জলবায়ু পরিবর্তন ও পরিবেশের মতো বিষয়গুলো। এর মধ্যে সামষ্টিক অর্থনৈতিক কাঠামো আছে, যাতে প্রতি অর্থবছরের অর্থনীতির সূচকগুলোর লক্ষ্যমাত্রা বিস্তরিতভাবে দেওয়া হয়েছে। ২০২১ সাল পর্যন্ত বাস্তবায়নাধীন প্রথম প্রেক্ষিত পরিকল্পনা তথা রূপকল্প ২০২১-এর ধারাবাহিকতায় ২০ বছর মেয়াদি দ্বিতীয় এই প্রেক্ষিত পরিকল্পনা প্রণয়ন করা হয়েছে।’ অনুষ্ঠানে সাধারণ অর্থনীতি বিভাগের সদস্য (সিনিয়র সচিব) ড. শামসুল আলমের সভাপতিত্বে আরো উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমেদ কায়কাউস, মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম প্রমুখ।

এই সংবাদটি 9 বার পঠিত হয়েছে