সঙ্কট মোকাবিলায় এবার পিয়াজের গুঁড়া

প্রকাশিত: ২:৩২ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১২, ২০২০


সু.ডাক ডেস্ক:

পিয়াজের সঙ্কট মোকাবিলায় এবার পিয়াজের গুঁড়া ব্যবহারের উপর গুরত্ব দিচ্ছে বগুড়া মসলা গবেষণা কেন্দ্রের বিজ্ঞানীরা। মসলা বিজ্ঞানীরা দাবি করেছেন, পিয়াজ গুঁড়া করে ব্যবহারে একই স্বাদ ও মান থাকবে। কাঁচার চেয়ে পিয়াজের গুঁড়া ব্যবহারে হবে বেশি সাশ্রয়ী। এ প্রক্রিয়ায় দেশের মোট চাহিদার প্রায় ৩০ শতাংশ পিয়াজের পচনরোধ করা সম্ভব।বগুড়া মসলা গবেষণা কেন্দ্র সূত্রে জানা গেছে, দেশে বছরে পিয়াজের চাহিদা প্রায় ৩৫ লাখ মেট্রিক টন। দেশীয়ভাবে পিয়াজের উৎপাদন হয় ২৩ দশমিক ৭৬ লাখ মেট্রিক টন। ১১ থেকে ১২ লাখ মেট্রিক টন পিয়াজ প্রতিবছর ঘাটতি থাকে। যা আমদানি করে চাহিদা মেটানো হয়।মসলা বিজ্ঞানীরা বলছেন, পিয়াজের গুঁড়া করা পদ্ধতি খুব সাধারণ। খোসা ছাড়িয়ে পিয়াজ প্রথমে স্লাইস করে ভাব দিতে হবে। পরে তা শুকিয়ে সোডিয়াম মেটাবাইসারফেট দ্রবণে ৪ থেকে ৫ ঘণ্টা ভিজিয়ে রাখার পর তা শুকাতে হবে। এরপর সাধারণ ব্লেন্ডিং মেশিনেই এটি গুঁড়া করা যাবে।বগুড়া মসলা গবেষণা কেন্দ্রের ঊর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মাসুদ আলম জানান, পিয়াজ গুঁড়া করলে এর গুণগত মাণ, খাদ্যে ব্যবহারের পরিমাণ কোনোটাই কমে না। এক কেজি পিয়াজ শুকিয়ে গুঁড়া পাওয়া যায় ১০০-২০০ গ্রাম। রান্না করার ক্ষেত্রেও অনুপাত এভাবে বন্টন হয়।
তার মতে, একটি পরিবারে এক কেজি মাংস রান্না করতে কাঁচা পিয়াজ লাগে ২৫০ গ্রাম। আর এই ২৫০ গ্রাম পিয়াজ গুঁড়া করলে পাওয়া যাবে ২৫ গ্রাম। মাংস রান্নাতে পিয়াজের গুঁড়া ২৫ গ্রাম দিলেই হবে। তাদের উদ্ভাবিত পিয়াজের গুঁড়া পদ্ধতি প্রয়োগ করলে সংরক্ষণের সময়জনিত আর কোনো সমস্যা থাকবে না।পিয়াজের গুঁড়া এক বছর প্যাকেটজাত করে সংরক্ষণ করা যায়। এতে বারী জাতের উচ্চ ফলনশীন গ্রীষ্মকালীন পিয়াজ উৎপাদনের পর তা গুঁড়া করে সংরক্ষণ ও ব্যবহার করলে সংরক্ষণ ঘাটতি যেমন থাকবে না। তেমনি কৃষকরা ন্যায্যমূল্যেও পাবেন। আর উচ্চ ফলনশীল বারি জাতে পিয়াজে কৃষকদের আগ্রহও বেড়ে যাবে।বগুড়া মসলা গবেষণা কেন্দ্রের মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. হামীম রেজা বলেন, পিয়াজের গুঁড়া পদ্ধতি যুগান্তারী উদ্ভাবন। এটি বাণিজ্যিকভাবে না করে শুধু ঘরোয়াভাবে করলেও লাভ। তাতেও দেশে পিয়াজের আমদানির কমবে।বগুড়া মসলা গবেষণা কেন্দ্রে ড. মাসুদ আলমের তত্ত্বাবধানে গবেষণাগারে গুঁড়া পিয়াজের উৎপাদন চলছে। তিনি জানালেন, জাপান, চীন, থাইল্যান্ডসহ বিশ্বের বহু দেশেই পিয়াজের গুঁড়া প্রচলন থাকলেও বাংলাদেশে নেই। এ কারণে তিনি প্রায় ৩ বছর ধরে পিয়াজের গুঁড়া করে সংরক্ষণের বিষয়ে গবেষণা করেন।তিনি জানান, খুব সাধারণভাবে যেকোনো উদ্যোক্তারা ঘরে বসেই এই পিয়াজের গুঁড়া উৎপাদন ও সংরক্ষণ করতে পারবেন। এটি ছড়িয়ে দিতে পারলে পিয়াজের আর সংকট থাকবে না।

এই সংবাদটি 4 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ