মিডিয়া মোবিলাইজেশন

প্রকাশিত: ৩:২৬ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৬, ২০২০

নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধে ১৮ বছরের উর্দ্ধে মোবাইল ব্যবহারের আইন করতে হবে–অ্যাড: শাহানা রব্বানী।
সহিংসতা থেকে রক্ষা পেতে আমাদের নৈতিকতা বৃদ্ধির উপর নজর দিতে হবে—-অধ্যক্ষ শেরগুল আহমদ।
ইফতি রহমান: সাবেক সংসদ সদস্য ও প্রেসক্লাবের সভাপতি,পাবলিক প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট শামসুন্নাহার বেগম শাহানা রব্বানী বলেছেন সহিংসতা থেকে আমাদের সন্তানদের রক্ষা করতে হলে তাদের ১৮ বছরের পরে মোবাইল ব্যবহারের আইন করতে হবে। তা না হলে আমাদের সন্তানরা তাদের বয়সের কারণে অনেক অপরাধ প্রবনতায় যুক্ত হয়ে যাবে।তিনি আরো বলেন, নারী নির্যাতনের পাশাপাশি পুরুষরা ও নির্যাতিত হচ্ছে। অনেক সময় দেখা যায়, মিথ্যা মামলা দিয়ে পুরুষদের হয়রানি করা হচ্ছে। এই অবস্থা থেকে আমাদের বেরিয়ে আসতে হবে। তার জন্য প্রয়োজন আমাদের পারিবারিক বন্ধন, আমাদের অতীত ইতিহাসের দিকে ফিরে তাকানো”। তিনি নারী ও শিশুর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে কিশোর ও পুরুষদের সম্পৃক্তকরণ প্রকল্পের অধীনে সুনামগঞ্জের সাংবাদিকদের সহিত মিডিয়া মোবিলাইজেশন অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।
উক্ত অনুষ্টানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ মো:শেরগুল আহমেদ বলেন, “সব ধরনের সহিংসতা থেকে রক্ষা পেতে আমাদের নৈতিকতার বিষয়ে বেশি করে নজর দিতে হবে। আমাদের ভিত্তিকে শক্ত করতে হবে। সমাজ ও রাষ্ট্রে শুধু আইন প্রয়োগ করেই সহিংসতা রোধ করা যাবে না। তার পাশাপাশি নৈতিক মূল্যবোধের প্রতি বেশি করে গুরুত্বারোপ করতে হবে”।
বৃহস্পতিবার বিকাল ৩ ঘটিকায় উকিলপাড়াস্থ সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাব মিলনায়তনে প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক্স মিডিয়াকর্মীদের সাথে প্রোগ্রামের ফোকাল পারসন সাংবাদিক মিজানুর রহমান মিজানের সঞ্চালনায় ব্রাকের সহযোগীতায় ও দরিদ্র সমাজ উন্নয়ন সংস্থার আয়োজনে কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। কর্মশালায় প্রকল্প পরিচিতি ও মিডিয়া মোবিলাইজেশন এর উদ্দেশ্য বর্ননা করেন ব্র্যাকের ডিভিশনাল ম্যানেজার উজ্জল কবি।

নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধ, বর্তমান প্রেক্ষাপট ও মিডিয়ার ভুমিকা” শীর্ষক আলোচনা, প্রতিবন্ধকতা ও করনীয় ক্ষেত্র চিহ্নিতকরণ এবং নারী ও শিশু নির্যাতন এবং নির্যাতন প্রতিরোধ বিষয়ক রিপোর্টিং/প্রতিবেদন বিষয়ে বক্তব্য রাখেন ফোকাল পার্সন সাংবাদিক মিজানুর রহমান মিজান,
প্রশ্নোত্তর পর্বে বক্তব্য রাখেন দৈনিক সুনামকন্ট পত্রিকার সম্পাদক-প্রকাশক বিজন সেন রায়, সাংবাদিক কেজি মানব তালুকদার, ঝুনু চৌধুরী, সেলিম আহমেদ তালুকদার, আল হেলাল, হিমাদ্রী শেখর ভদ্র, মুহাম্মদ আমিনুল হক, জসিম উদ্দিন, সিরাজুল ইসলাম শ্যামল, সুলেমান কবীর, আনোয়ারুল হক, রুজেল আহমদ, ফরিদ মিয়া, ইফতি রহমান,দরিদ্র সমাজ উন্নয়ন সংস্থার প্রতিনিধি মো: সবুজ আহমদ।

এই সংবাদটি 63 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ