জেলার বিভিন্ন উপজেলায় ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে ঘরের চাবি ও দলিল হস্তান্তর

প্রকাশিত: ৪:৩৪ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২৩, ২০২১

ইফতি রহমান:
হাওরের জেলা সুনামগঞ্জের প্রত্যন্ত গ্রামেও এখন ‘‘আশ্রয়ণের অধিকার, শেখ হাসিনার উপহার’’ এমন স্লোগান অত্যন্ত জনপ্রিয় । চলমান মুজিববর্ষে সারা দেশের ন্যায় সুনামগঞ্জ জেলার ১১টি উপজেলার প্রত্যন্ত এলাকার ভূমিহীন ও গৃহহীন ৩ হাজার ৯০৮টি দরিদ্র পরিবার পর্যাযক্রমে প্রধানমন্ত্রীর এই উপহার পাবেন।
বঙ্গবন্ধুর জন্ম শতবার্ষিকী উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গতকাল শনিবার সকালে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সুনামগঞ্জ জেলায় প্রথম পর্যায়ে দরিদ্র ও আশ্রয়হীন ৪০৭ পরিবারের মধ্যে ঘরের চাবি ও জায়গার দলিল হস্তান্তর কার্যক্রম আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করেন।
সুনামগঞ্জ সদর উপজেলাঃ
প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশক্রমে সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার ৫০টি গৃহহীন পরিবারের কাছে আনুষ্ঠানিকভাবে ঘরের চাবি ও দলিল হস্তান্তর করা হয়।
এর আগে সুনামগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদের আয়োজনে মুজিববর্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কতৃক ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও গৃহ প্রদান অনুষ্ঠান উপলক্ষে আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়।
আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন- সিলেটের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার ফজলুল কবীর, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) শরীফুল ইসলাম, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইয়াসমিন নাহার রুমা, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান খায়রুল হুদা চপল, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল মোমেন, অধ্যক্ষ(অব:) পরিমল কান্তি দে, সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান নিগার সুলতানা কেয়া, আবুল হোসেন প্রমুখ।
জানা যায়, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের অধীন এবং ভূমি মন্ত্রণালয়ের সিভিআরপি প্রকল্পের আওতায় জেলার ১১ উপজেলার স্ব-স্ব উপজেলা প্রশাসন প্রায় ৬৬ কোটি টাকা ব্যয়ে ঘরগুলো নির্মাণ করেছে। এক লাখ ৭১ হাজার টাকা ব্যয়ে দুই শতক জমিতে দু’টি শয়নকক্ষ, একটি রান্নাঘর, একটি বাথরুম এবং প্রতিঘরেই ছোট বারান্দা রয়েছে।
দৃষ্টিনন্দন এই নতুন ঘরগুলো অনেক গ্রামকে ইতোমধ্যে আলোকিত করেছে। প্রত্যেকটি ঘরে পল্লী বিদ্যুৎ বা বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের লাইন থেকে সংযোগও দেয়া হচ্ছে। যেখানে বিদ্যুৎ দিতে সমস্যা হচ্ছে, সেখানে সৌর বিদ্যুতের ব্যবস্থা করা হবে।
খোলামেলা জায়গায় আশ্রয়ন প্রকল্পে নবনির্মিত দৃষ্টিনন্দন ঘরের চাবি ও জায়গার দলিল পেয়ে উপকারবোগী প্রায় সকলেই একই কথা বলেন,‘ এরকম একটি ঘরে জীবনে তাদের কোনোদিন থাকা হবে, এমন বড় স্বপ্ন কখনোই দেখেননি তারা। শেখ হাসিনা তাদের মাথাগোঁজার ঠাঁই করে দিয়েছেন, সে জন্য তারা শেখ হাসিনার জন্য জন্য দোয়া করেন।
সুনামগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইয়াসমিন নাহার রুমা বলেন, সুনামগঞ্জ সদর উপজেলায় ১৫০টি আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর হবে। ইতোমধ্যে ৫০টি ঘরের কাজ শেষ করে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাদের হাতে ঘরের চাবি ও দলিল তুলে দিয়েছেন।
অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) শরিফুল ইসলাম বলেন, জেলায় ৩ হাজার ৯০৮ গৃহহীনকে ঘর তৈরি করে দেয়া হচ্ছে। এরমধ্যে ৪০৭টি ঘরের চাবি ও দলিল ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উদ্বোধন করে গৃহহীন মানুষের হাতে তোলে দিয়েছেন।
দোয়ারাবাজার উপজেলাঃ
বঙ্গবন্ধুর জন্ম শতবার্ষিকী উপলক্ষে গণভবন থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সারাদেশে একযোগে ভূমি ও গৃহহীন পরিবারকে ঘর, জমি প্রদান কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেছেন।
এরই ধারাবাহিকতায় গতকাল শনিবার সকাল ১০টায় দোয়ারাবাজার উপজেলা পরিষদ অডিটোরিয়ামে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে উপজেলার ১০টি গৃহ ও ভূমিহীন পরিবারকে ঘর ও জমি প্রদান করা হয়েছে।
এসময় উপস্থিত প্রশাসনিক কর্মকর্তা ও সুধীজন এসব পরিবারকে পাকা ঘরের মালিকানা ও দলিলপত্র বুঝিয়ে দেন।
ঘর হস্তান্তর অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- দোয়ারাবাজার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সোনিয়া সুলতানা, দোয়ারাবাজার থানার ওসি মোহাম্মদ নাজির আলম, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আম্বিয়া আহমেদ, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আজাদুর রহমান, উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা কামরুল ইসলাম, উপজেলা বিআরডিবি কর্মকর্তা শাহীন আহমেদ, উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা পঞ্চানন কুমার সানা, বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হালিম বীরপ্রতীক, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার সফর আলী, সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল বারী, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল খালেক, উপজেলা জাতীয় শ্রমিকলীগের সভাপতি তাজির উদ্দিন মেম্বার, দোয়ারাবাজার সরকারি ডিগ্রী কলেজের প্রভাষক শের মাহমুদ ভূঁইয়া, উপজেলা পরিষদের সিএ সফিক রহমান, উপজেলা ভূমি অফিসের কানুনগো পেয়ার আহমেদ, দোয়ারাবাজার উপজেলা প্রেসক্লাবের সদস্য সচিব এনামুল কবির মুন্নাসহ বিভিন্ন দপ্তরের প্রশাসনিক কর্মকর্তা, রাজনৈতিক নেতৃবৃদ ও গণমাধ্যমকর্মীরা।
উল্লেখ্য, উপজেলার ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের জন্য বরাদ্দকৃত ২৬০টি ঘরের মধ্যে ১০টি ঘর আনুষ্ঠানিকভাবে হস্তান্তর করা হয়েছে। প্রস্তুতকৃত আরো ৬০টি ঘর হস্তান্তরের প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। বাকিগুলোর কাজ চলমান রয়েছে।
ধর্মপাশা উপজেলাঃ
মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষ্যে ধর্মপাশা উপজেলায় ভূমিহীন ও গৃহহীন ৩৪টি পরিবারকে জমির দলিল ও নবনির্মিত গৃহ প্রদান করা হয়েছে। গতকাল শনিবার গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের এর মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন।  উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে সকালে উপজেলা গণমিলনায়তনে দলিল হস্তান্তর করা হয়।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মুনতাসির হাসেনের সভাপতিত্বে এ সময় বক্তব্য রাখেন- উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) মো. আবু তালেব, উপজেলা আ‘লীগ সাধারণ সম্পাদক শামীম আহমেদ বিলকিস, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. নাজমুল হাসান, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা প্রজেশ চন্দ্র দাস মুক্তিযোদ্ধা নাজিম উদ্দিন তালুকাদার,  প্রমূখ।
উল্লেখ্য- আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের আওতায় ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের জন্য ধর্মপাশায়  প্রতিটি ঘর ১ লাখ ৭১ হাজার টাকা ব্যয়ে ১ম পর্যায়ের ৩৪টি নির্মাণ করা হয়।
এছাড়া আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের আওতায় ২য় পর্যায়ে এ উপজেলায় আরো ২৬৬ টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে ঘর দেয়া হবে।
তাহিরপুর উপজেলাঃ
দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের অর্থায়নে তাহিরপুর উপজেলায় ভূমিহীন ও গৃহহীনদের জন্য নির্মিত ২৪ টি পরিবারকে ঘর হস্তান্তর করা হয়েছে। গতকাল শনিবার গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’র নির্দেশক্রমে উপকারভোগীদের নিকট নির্মিত এসব ঘর হস্তান্তর করা হয়।
গ্রামীণ অবকাঠামো সংস্কার কর্মসূচির আওতায় ২৪ টি ঘর নির্মিত হয়েছে। বরাদ্দকৃত বাকী ঘরও নির্ধারিত সময়ের মধ্যে প্রস্তুত করা হবে বলে জানিয়েছেন তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পদ্মাসন সিংহ ।
প্রধানমন্ত্রীর ভিডিও কনফারেন্সের পূর্বে তাহিরপুর উপজেলা কনফারেন্স রুমে বক্তব্য রাখেন- উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পদ্মাসন সিংহ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি আব্দুস সোবহান আখঞ্জী, উপজেলা আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক অমল কান্তি কর, উপজেলা পরিষদ মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান খালেদা বেগম, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হাসান উদ দৌলা, উপজেলা প্রেসক্লাব সভাপতি রমেন্দ্র নারায়ণ বৈশাখ, উপজেলা খাদ্য গুদাম কর্মকর্তা মফিজুর রহমান, সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা বিপ্লব সরকার,ইউপি সদস্য হুমায়ুন কবির প্রমুখ।
বিশ্বম্ভরপুর উপজেলাঃ
“আশ্রয়নের অধিকার-শেখ হাসিনার উপহার” শ্লোগানে মুজিববর্ষ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কর্তৃক ভূমিহীন ও গৃহহীন ৫০টি পরিবারের মধ্যে ৩০টি পরিবারকে জমি ও নির্মিতগৃহ ভার্চূয়াল অনুষ্ঠানের মাধ্যমে প্রদান করা হয়েছে। গতকাল শনিবার সকালে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাদি উর রহিম জাদিদ এর সভাপতিত্বে উপজেলা হলরুমে উপজেলা ভূমি কর্মকর্তা সজল মোল্লার পরিচালনায় প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক জাহাঙ্গীর হোসেন। দেশের ২১টি জেলার ৩৬টি উপজেলায় একযোগে প্রায় ৬৯ হাজার ৯ শত ৪ জন ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের জমি ও গৃহ প্রদান অনুষ্ঠানের অংশ হিসেবে সুনামগঞ্জ জেলার বিশ্বম্ভরপুর উপজেলায় আশ্রয়ন প্রকল্প-২ এর আওতায় ৩০টি গৃহহীন পরিবারকে মাঠপর্চা,ডিসিআর সহ মালিকানা হস্তান্তর করা হয়। অনুষ্ঠানে কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন ক্বারী গিয়াস উদ্দিন ও গীতা পাঠ করেন স্বপন কুমার বর্মণ। বক্তব্য রাখেন- বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সফর উদ্দিন, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা চৌধুরী জালাল উদ্দিন মুর্শেদ, উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি বেনজীর আহমেদ মানিক, উপজেলা প্রেসক্লাব সভাপতি স্বপন কুমার বর্মন, বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান তাজ্জত আলী, সলুকাবাদ ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল আলম সিদ্দীকি তপন, উপকারভোগী গৃহহীন পরিবারের- ফজলুর রহমান ও আফিয়া খাতুন প্রমূখ।
শাল্লা উপজেলাঃ
শাল্লায় প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের ১ম পর্যায়ে উপকারভোগীদের মধ্য হতে ৪০জন সুবিধাভোগীর মধ্যে ২শতক করে জমির দলিল ও নামজারী খতিয়ানের পর্চা হস্তান্তর করা হয়েছে। গতকাল শনিবার শাল্লা উপজেলা অডিটরিয়ামে এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এসব দলিল ও পর্চা হস্তান্তর করা হয়।
সকালে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে দেশের বিভিন্ন জেলা/উপজেলায় ৭০ হাজার ঘর সুবিধাভোগীদের মধ্যে হস্তন্তরের শুভ উদ্ভোধনের পর পরই শাল্লা এ কার্যক্রমের সূচনা করা হয়।
আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের সুবিধাভোগীদের মধ্যে ঘর ও জমির দলিল হস্তান্তর অনুষ্ঠানে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আল মুক্তাদির হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন- উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন- উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাড. দিপু রঞ্জন দাস, অমিতা রাণী দাস, সহকারি কমিশনার (ভূমি) কৃষ্টফার হিমেল রিছিল, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ ফেরদৌস আক্তার, শাল্লা থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ নাজমুল হক উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, সদস্যবৃন্দ, স্থানীয় রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গ, বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেক্টনিক মিডিয়ার সংবাদকর্মীবৃন্দ এবং প্রকল্পের সুবিধাভোগীগণ সহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার লোকজন উপস্থিত ছিলেন। প্রধান শিক্ষক অনাদি তালুকদার অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন।
সভায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আল মুক্তাদির হোসেন বলেন, আজ ‘ভূমিহীন-গৃহহীণ’ লোকদের মধ্যে আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পে ঘর ও জমির দলিল হস্তান্তর অনুষ্ঠানে ১ম পর্যায়ে নির্মিত ১৬০টি ঘরের মধ্যে ৪০টি পরিবারের কাছে তাদের ঘর ও জমির দলিল হস্তান্তর করা হয়েছে। বাকিগুলোও পর্যায়ক্রমে হস্তান্তর করা হবে। তাছাড়া ২য় পর্যায়ের আরো ১৪শ’ ২১টি ঘর আগামি দু’মাসের মধ্যে নির্মাণ করে সুবিদাভোগীদের মধ্যে হস্তান্তর করা হবে। উক্ত ঘর নির্মাণে তিনি সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।
এসময় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আল মুক্তাদির হোসেন, সহকারি কমিশনার (ভূমি) কৃষ্টফার হিমেল রিছিল ও উপজেলা চেয়ারম্যান চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ উপজেলার ‘ভূমিহীন-গৃহহীণ’ ৪০টি পরিবারের মধ্যে ঘর হস্তান্তরসহ জমির দলিল ও নামজারী পর্চা তুলে দেন
জগন্নাথপুর উপজেলাঃ
মুজিববর্ষ উপলক্ষে জগন্নাথপুরে ২৩ টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও গৃহ প্রদান করা হয়েছে। গতকাল শনিবার সকালে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একযোগে সারাদেশে ৬৬ হাজার ১ শত ৮৯ পরিবারকে ভুমি ও একক গৃহ প্রদান ও ৩ হাজার ৭ শত ১৫ পরিবারকে জমিসহ ব্যারাকে পূনর্বাসনের শুভ উদ্বোধন করেন।

এ উপলক্ষে শনিবার সকালে জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদ সম্মেলন কক্ষে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মেহেদী হাসানের সভাপতিত্বে ও উপজেলা কমিশনার (ভূমি) ইয়াসির আরাফাতের পরিচালনায় আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন- জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক রেজাউল করিম রিজু, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান বিজন কুমার দেব, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মোছা. ফারজানা আক্তার, থানার অফিসার ইনচার্জ ইখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা: মধু সুধন ধর প্রমুখ।
পরে ২৩ টি ভূমি ও গৃহহীন পরিবারেরর মাঝে চাবি হস্তান্তর করা হয়। এসময় উপজেলার বিভিন্ন শ্রেনি-পেশার ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।
জামালগঞ্জ উপজেলাঃ
জামালগঞ্জে মুজিববর্ষ উপলক্ষে ২৫টি সুবিধাভোগী পরিবারের মাঝে সরকার কর্তৃক নির্মিত গৃহ ও ভূমি মালিকানার কবুলতনামা প্রদান অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে।
শনিবার (২৩ জানুয়ারি) সকাল সাড়ে ১০টায় উপজেলা পরিষদ হলরুমে উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে প্রধানমন্ত্রীর উদ্বোধনী ভাষণের পর চাবি ও কবুলতনামা সুবিধাভোগীদের মাঝে হস্তান্তর করা হয়।
এতে সভাপতিত্ব করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিশ্বজিত দেব। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ইকবাল আল আজাদ।
বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান বীনা রানী তালুকদার, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান গোলাম জিলানী আফিন্দী রাজু, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. রেদুয়ানুল হালিম, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহাম্মদ আলী, সাধারণ সম্পাদক এম নবী হোসেন।
অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. এরশাদ হোসেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কাজী আশরাফুজ্জামান, বেহেলী ইউপি চেয়ারম্যান অসীম তালুকদার, বীর মুক্তিযোদ্ধা শ্রীকান্ত তালুকদার প্রমুখ। এছাড়া আরও উপস্থিত ছিলেন, ফেনারবাঁক ইউপি চেয়ারম্যান করুণা সিন্ধু তালুকদার, জামালগঞ্জ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বিধান ভূষণ চক্রবর্ত্তী, প্রেসক্লাব সভাপতি মো. ওয়ালী উল্লাহ সরকার, সহ সভাপতি অঞ্জন পুরকায়স্থ, সমবায় কর্মকর্তা আবু তাহের তালুকদার প্রমুখ।

এই সংবাদটি 91 বার পঠিত হয়েছে