সিলেটে সড়ক দুর্ঘটনায় সুনামগঞ্জের ২ জনসহ নিহত ৮ আহত ৩০জন

প্রকাশিত: ৪:০৭ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২৬, ২০২১

ইফতি রহমান:
সিলেটের দক্ষিণ সুরমার রশিদপুরে দুই বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহতের সংখ্যা বেড়ে আট জনে দাঁড়িয়েছে। এই সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছে পুলিশ। দক্ষিণ সুরমা থানার ওসি মনিরুল ইসলাম নিহতের হিসাব নিশ্চিত করেছেন। গতকাল সকাল ৭ টার দিকে সিলেট-ঢাকা মহাসড়কে জেলার বিশ্বনাথ উপজেলার রশিদপুর নামক স্থানে ভয়াবহ এ দুর্ঘটনা ঘটে। দুর্ঘটনার পর ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের উভয় পাশে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। তাৎক্ষণিকভাবে সাত জনের মৃত্যুর কথা জানায় পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস। পরে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে রহিমা খাতুন নামের আরেক নারী মারা যান। তিনি সুনামগঞ্জের দুয়ারাবাজারের ভাওয়ামী গ্রামের মফিজ উদ্দিনের মেয়ে।
দুর্ঘটনায় নিহত অন্যরা হলেন-সিলেটের উইমেন্স মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক মেডিসিন বিভাগের প্রভাষক আল মাহমুদ সাদ ইমরান খান (৩৩),এনা পরিবহনের বাসের চালক ওসমানীনগর উপজেলার ধরখা গ্রামের মঞ্জুর আলী (৩৮),এনার সুপারভাইজার সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার মিঠাভরা গ্রামের সালমান খান (২৫), হেলপার ধরখা গ্রামের জাহাঙ্গীর হোসেন (২৪), ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার সরাইল থানার রাজানিয়াকান্দি পশ্চিম পাড়ার নুরুল আমিন (৫০), ঢাকার ওয়ারি এলাকার নাদিম আহমদ সাগর (২৯) ও সিলেট নগরের আখালিয়া নয়াবাজারের শাহ কামাল (২৭)।এ ঘটনায় আরও অন্তত ৩০ জন আহত হন। এর মধ্যে ১৫ জন সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি আছেন। এর মধ্য কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।সিলেট মহানগর পুলিশ জানায়, হাসপাতালে গুরুতর আহত অবস্থায় চিকিসাধীনরা হচ্ছেন- রেজাউল করিম (৫০), শামিম (২৩),জসিম উদ্দিন (৩০), আলা উদ্দিন (৬০), সায়ান (১৬), সালাম (৪০), ডা. অন্তরা (৩০), চান বিবি (৬০), শারমিন (৩০), সীমা পারভিন (৩০), সানাত (৩৫), মাহি (৭), সুবর্ণা (৩০) ও সেলিনা পারভীন (৩০)।
দক্ষিণ সুরমা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মনিরুল ইসলাম গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।তিনি জানান, ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা লন্ডন এক্সপ্রেস (ঢাকা মেট্রো-ব ১৫-৩১৭৬) ও সিলেট থেকে ছেড়ে যাওয়া ঢাকামুখী এনা পরিবহনের (ঢাকা মেট্রো ব ১৪-৭৩১১) দ্রুতগতির দুটি বাসের মধ্যে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে উভয় বাসের সামনের অংশ দুমড়ে-মুচড়ে গেছে। এতে বহু যাত্রী হতাহত হয়েছেন। ঘটনার প্রথম দিকে পুলিশ ১১ জন নিহতের কথা জানালেও পরবর্তীতে সাতজনের মরদেহ উদ্ধারের বিষয়টি নিশ্চিত করে। হতাহতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।
লন্ডন এক্সপ্রেসের যাত্রী জসিম আহমদ জানান, ঢাকা থেকে আসার পথে বারবার বাসের চালক ওভারটেক করছিলেন। তাকে কয়েকবার সর্তকও করা হয়। কিন্তু কথা শোনেননি। তিনি বাসটি খুব দ্রুতগতিতে চালাচ্ছিলেন বলে জানান জসিম। সুমন নামে আরেক যাত্রী জানান, লন্ডন পরিবহনের বাসে ২৯-৩০ জন যাত্রী ছিলেন। তাদের সবাই আহত হয়েছেন। এদের মধ্যে কয়েকজন মারাও গেছেন।
‘লন্ডন এক্সপ্রেসের’ বাসটির কারণেই দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে প্রাথমিকভাবে নিশ্চিত হয়েছে পুলিশ ও দমকল বাহিনী। এ ব্যাপারে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স সিলেটের উপ-পরিচালক কোবাদ আলী সরকার বলেন, লন্ডন এক্সপ্রেসের বাসটি রাস্তার ভুল দিকে এসে এনা পরিবহনের বাসটিকে ধাক্কা দেয়। প্রাথমিকভাবে মনে হচ্ছে, লন্ডন এক্সপ্রেসের ভুলেই এতোগুলো প্রাণহানি ঘটেছে। তবে দুর্ঘটনার আসল কারণ পরবর্তীতে তদন্তে জানা যাবে।

এই সংবাদটি 55 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ