জামালগঞ্জে চাচাতো ভাইয়ের হাতে ভাই-ভাবী খুন : গ্রেপ্তার ১

প্রকাশিত: ৬:০৪ অপরাহ্ণ, মে ১০, ২০২১

জামালগঞ্জ প্রতিনিধি :
সুনামগঞ্জ জেলার জামালগঞ্জ উপজেলায় বেহেলী ইউনিয়নের বেহেলী আলীপুর গ্রামে জমি কেনা বিরোধের জের ধরে শিশুদের ঝগড়াকে কেন্দ্র করে চাচাতো ভাইয়ের ছুরিকাঘাতে ভাই ও ভাবী খুন হয়েছে। তাদের লিমা আক্তার (১৩), নাঈম ইসলাম (১০), অলিমা (৭) ও রাকিবুল হাসান (৫) নামের ৪ শিশু সন্তান রয়েছে। রবিবার রাত ৮টায় চাচাতো ভাইয়ের ঘরে ঢুকে উপর্যুপরী ছুরির আঘাতে তাহের আলীর ছেলে আলমগীর (৩২) ও তার স্ত্রী মোছা. মুর্শেদা বেগম (২৮) কে খুন করা হয়। এ ব্যাপারে নিহত আলমগীরের পিতা বাদী হয়ে জামালগঞ্জ থানায় ৬ জনকে অভিযুক্ত একটি মামলা রুজু করেন। মামলা নং-৩। অভিযুক্ত রাসেলের স্ত্রী বিপলুমা খাতুনকে গ্রেপ্তার করা হয়। তবে মূল আসামীকে এখনও গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ।
এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, একই গ্রামের খুনী রাসেলের পিতা জনর আলী ২ বিঘা জমি বিক্রি করেন মো. শহীদ মিয়ার কাছে। তাহের আলীর বোন জনর আলীকে তার অংশ দাবি করে জমি অন্য কার কাছে বিক্রি না করার দাবি জানান। দুই ভাইয়ের অংশের মাঝখানে আরেকটি জায়গা মিল করার জন্য শহীদ মিয়ার কাছে বিক্রি করেন। এতে আলমগীরের পিতা এবং রাসেলের পিতার মাঝে দ্বন্দ্বের সৃষ্টি হয়। পরবর্তীতে মিলের পাশে একটি বৈদ্যুতিক পিলার স্থাপন করে। এই পিলার থেকে তাহের আলীর ঘরের উপর দিয়ে নিতে নিষেধ করলে তা বন্ধ থাকে। এরই মধ্যে ঘটনার দিন রাসেলের ভাই এবং আলমগীরের ছেলে ঝগড়ায় লিপ্ত হয়। একপর্যায়ে দুই পরিবারের নারীদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে। পরবর্তীতে রাসেল ক্ষুব্ধ হয়ে আলমগীরের স্ত্রীকে ছুরি দিয়ে উপর্যুপরী আঘাত করে। তার স্বামী আলমগীর বাধা প্রদান করলে তাকেও মারাত্বকভাবে আঘাত করা হয়। তাদের চিৎকারে আশেপাশের লোকজন এসে আহতদের জামালগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিয়ে আসার পথে রাস্তায় মুর্শেদা বেগম ও পরে আলমগীর মারা যান। পরে সদর হাসপাতালে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদেরকে মৃত ঘোষণা করেন। পরদিন সোমবার জামালগঞ্জ থানা পুলিশ লাশ ময়না তদন্তের জন্য সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেন। এ ব্যাপারে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন সুনামগঞ্জ পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান পিপিএম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাহেব আলী পাঠান (অপরাধ), সহকারী পুলিশ সুপার (তাহিরপুর সার্কেল) মো. বাবুল আক্তার।
এ ব্যাপারে মোহাম্মদ সাইফুল আলম বলেন, মামলা রুজু হয়েছে। ১ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বাকীদের গ্রেপ্তারের জোর চেষ্টা অব্যাহত আছে। ইতিমধ্যে মাননীয় পুলিশ সুপার মহোদয় ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

এই সংবাদটি 34 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ