আদিবাসী তরুণীকে ধর্ষণের অভিযোগে একজন আটক

প্রকাশিত: ৪:২৬ অপরাহ্ণ, আগস্ট ১৪, ২০২১

মিজানুর রহমান মিজান:
তাহিরপুর উপজেলার বড়দল উত্তর ইউনিয়নের রাজাই গ্রামের সদ্যবিবাহিতা এক আদিবাসী তরুণীকে (২১) ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। পুলিশ ধর্ষনের অভিযুক্তকে আটক করেছে। শনিবার (১৪ আগস্ট) নিজ বসতঘরের অদূরে পাহাড়ি ছড়ায় গোসল করতে গেলে তিনি ধর্ষণের শিকার হন।
ঘটনার পর বিকেলে অভিযুক্ত যুবক রাশিদ মিয়াকে (৪০) উপজেলার বড়দল উত্তর ইউনিয়নের রাজাই এলাকা থেকে আটক করেছে তাহিরপুর থানার পুলিশ। রাশিদ মিয়ার দুই স্ত্রী ও চার সন্তান রয়েছে।
জানা যায়, শনিবার সকালে উপজেলার উত্তর বড়দল ইউনিয়নের ভারত সীমান্তবর্তী রাজাই গ্রামের বাসিন্দা সদ্যবিবাহিত ওই আদিবাসী তরুণী নিজ বসতঘরের অদূরে রাজাই পাহাড়ি ছড়ায় গোসল করতে যান। পরে একই গ্রামের আবুল কালামের ছেলে রাশিদ মিয়াও সেখানে গোসল করতে যান। একপর্যায়ে রাশিদ মিয়া ওই আদিবাসী তরুণীকে কুপ্রস্তাব দেন। কিন্তু প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় আদিবাসী ওই তরুণীকে ছড়ার পাশেই জোরপূর্বক ধর্ষণ করেন রাশিদ মিয়া। এ সময় প্রচুর বৃষ্টিপাত থাকায় ওই তরুণী চিৎকার করলেও তা কেউ শুনতে পায়নি। পরে বাড়ি ফিরে ধর্ষণের ঘটনাটি পরিবারকে জানান ওই তরুণী। পরে পরিবার বিষয়টি স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও পুলিশকে ঘটনাটি জানায়।
বড়দল উত্তর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কাসেম বলেন, ঘটনাটি সকালে ইউপি সদস্য শুষমা জাম্বিল আমাকে জানিয়েছেন। আমি ভিকটিমের পরিবারকে পরামর্শ দিয়েছি বিষয়টি পুলিশকে জানানোর জন্য।
তাহিরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল লতিফ তরফদার সুনামগঞ্জের ডাককে জানান, ঘটনার অভিযোগ পেয়েই অভিযুক্ত রাশিদ মিয়াকে আটক করা হয়েছে। মামলা প্রক্রিয়াধীন আছে।

এই সংবাদটি 19 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ